দীর্ঘদিন এই আলোচনা সভাতে আমি কিছু লিখি না। বেশ ঘোষণা দিয়েই বিদায় নিয়েছিলাম। কবিতার আসরেও আমার আর কোন আনাগোনা নেই। একটা লেখা পোস্ট করে দিয়ে চলে যাই। কেউ অভিমান ভাবুক, কেউ ভাবুক অহংকার- আমি চলেছি ও চলি আমার মতনই। এই আসরে অনেক সমবয়সী মিত্র, অনুজপ্রতিম ভাই ও জ্যেষ্ঠ শুভানুধ্যায়ী পেয়েছিলাম, যাদের অনেকের সাথে আমার যোগাযোগ আজও আছে। অনেকের সাথে নেই। সখ্যতা এই সাইটের বলয়ে সীমাবদ্ধ থাকেনি। দৈনন্দিন জীবনের নানান প্রয়োজনেও আমরা এসেছি একে অন্যের কাছে। হয়ত সেখানে লোকসংখ্যা খুবই কম। কিন্তু এই কম মানুষগুলোর ভালবাসাও কি খুব কম? এই সাইটের কাছে এ কারণে হলেও তো আমি ঋণী।


আমাকে সবচেয়ে বেশী প্রভাবিত করেছে যে ব্যাপারটা এখানে প্রত্যাবর্তন করতে তা হল- আমার উপস্থিতির গুরুত্ব! উফ! কি দাম্ভিকতার কথা! না না। খুব সহজেই বলছি- আমার দীর্ঘদিনের নীরবতা ও উদাসীনতাও এই সাইটের কার্যসম্পাদনামন্ডলীর মন থেকে যে আমাকে মুছে দেয়নি তা আমাকে কিছুটা আশ্চর্য্যান্বিতই করেছে। আমি কৃতজ্ঞ এডমিনের কাছে। কৃতজ্ঞ এই প্যানেলের অন্যান্যদের কাছে। আমি বলতেই পারি- এই সাইট থেকে এতটুকুই আমার জন্য যথেষ্ট সম্মান যা আমিও আশা করিনি। আমাকে আপনাদের মাঝে রেখেছেন আমার সমস্ত অকর্মণ্যতা সত্ত্বেও তা আপনাদের আস্থা ও বিশ্বাসের দৃষ্টান্ত। আমি বিপরীতটাই আশা করতাম। চেষ্টা করব আপনাদের আস্থার মান রাখার।


মধ্যরাত! স্বাভাবিক আবেগের সময়। কি লিখছি জানি না। ভালমন্দ কাল সকালে টের পাব। আপাতত পুরাতন সকল আশির্বাদক ও বন্ধুবর্গকে নমস্কার জানাই, যারা সতত ঈর্ষার তীর সঙিন রাখতেন তাদেরও জানাই নমস্কার। আমি ফিরে এলাম। থাকবও হয়ত। আবার হয়ত এখানে কিছু না কিছু বিষয় নিয়ে টুকটাক আলাপচারিতা হবে। আবারও কিছুদিন অল্পস্বল্প কবিত্ব ফলানো যাবে সময়ে অসময়ে। ধন্যবাদ এডমিন, ধন্যবাদ এডিটর ও মোডারেটর প্যানেলকে।