হে ভগবান, দাও আমায় জাগ্রত করার অফুরন্ত মনোবল;
আমি যে পারছিনা, এই নিষ্ঠুর স্বপ্ন মহলে থাকতে সবল।
মলিন আঁস্তাকুড়ে রয়েছে ছড়িয়েছিটে অভুক্ত,জির্ন লিকলিকে মানুষ অশ্রুনয়নে;
আমি যে একা,কি করে পারি সাহায্যের হাত ছড়িয়ে বুকে টেনে।
আমি যে নিঃস্ব, আমি একাকী,আমাকে অর্থহীন করেছে এই ভাগ্য;
শুধু এই করুন সংবেদনশীল মনে, থাকে অশ্রুনয়নে এটাই আমার সাক্ষ্য।
অশ্রুনয়নে যখন রাস্তার পানে তাকাই, পড়ে আছে খোলা আকাশের নীচে ;
রক্তে রাঙা ভঙ্গ দেহ,নিঝুম রাতে চিরতরে শুয়ে আছে ভারতমায়ের কোলে।
কত ধর্মের,কত মানুষের সমাবেশ, আমাদের এই নিয়ে নির্মল দেশ;
তবুও কেন ধর্ষণ,নির্যাতন ,কেন সাহায্যহীন আমার তোমার বোন,
লজ্জার মহে, অচল পড়া স্বপ্ন বুকে ত্যাগ করেছে ভারতমায়ের কোল শেষে ।
হয়তো তাদের দেখা স্বপ্ন নতুন রূপ পেত, যদি সাহায্যের হাত বাড়াত সেই মুহূর্তে;
তারা আমার তোমার ভাই-বোন নব রূপে গড়ত সমাজ যদি থাকতো বেঁচে এই জগতে ।
হে সমাজ কোন শিক্ষায় তৈরি করেছো সবুজ মোহ মাখিত জগতে এই মানুষ;
সবুজের কোমল স্পর্শেও বড়ো বড়ো ব্যাধিও দূরে থাকে, তাহলে এরাও কি......
এই দিবালোকে একি স্বপ্ন দেখালে এই জাগ্রত দু নয়নে;
তবুও আমি চুব থাকতে পারিনা, এই স্বপ্ন মহলের শয়নে।
ভালো হত যদি হতাম আমি অন্ধ,তখন হয়তো কান্নার ধ্বনি শুনতাম কানে;
দেখতে পেতাম না সবুজের রাঙা মাকে,তবুও এই শিহরনের দৃশ্য স্বপ্নের মতো লাগতো মনে।।


রচনাকাল -
নিজ বাসভবন,
শনিবার, 07/01/2017,
সকাল 06:31,