প্রিয়কবি জিন্নুরাইন কবিতা "আমার ইচ্ছা" আজ কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


আদুনিক গদ্যছন্দ কবিতা প্রয়াস 9


                                পারসেন্ট


          অসহিষ্নুতা শুধুই অশিক্ষা কুশিক্ষার অশ্বডিম্ব ফসল-
                      শিক্ষা তো আজকাল ফ্যাশন।
                     যার যত টাকা তার তত বাতিক-
         দিল্লি পাবলিক-মাদার ফাদার-সেন্ট বা কিন্টারগার্ডেন-
                           পয়সা ফেক তামাসা
                                    দেখ।


         নাইন্টি ফাইভ নাইন্টি এইট পারসেন্ট-টাকার ফসল-
                         ভাল হবে না এটা হয় নাকি-
                              মানুষ হবার শীক্ষা
                                     নাই।


                 এরপর যদি লিখি-যা রাগ ক্ষোভ আছে মনে-
                           অশালীন মনে হতে পারে-
                        তাই ভাবছি আর এগোবো না-
                                      ছেড়ে দি।


                 তবুও অল্প একটু উগরে না দিলে আমার
                             সেরিব্রাল ক্ষতি হতে পারে।
                               তাই বলি-মাতা পিতা-

                   তিন বৎসর ছেলেমেয়ের কাছে আশা করে
                               আইনস্টাইনের মতো
                                    মেধাশক্তি-


                    বাবার মুদির দোকান-ফুলেফেঁপে ভরা-
                         টাকার অভাব নাই-মানুষ নয়
                                ওদের চাই মার্কস।


               দেদার মুনাফা ইংলিস স্কুলগুলি-নাইন্টি ফাইভ-
                            নাইন্টি নাইন-তারপর
                বিচার চলে জুভেনাইল কোর্টে-মানুষ তো হয় নাই
                                শুধু পারসেন্ট-


                             জুতা মারি ওই শিক্ষায়।


প্রিয়কবি খসা হক মহাশয়ের প্রকাশিত "পত্রিকা(৫০ তম) কবিতার উত্তরে কথপোননে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                                      কলকাতা


                  ব্যস্ত নগগর প্রানের স্পন্দন বয়ে যায় অবিরত-
                            বিলাসির কতনা বিলাস বাহুল্য-
                                আবার দুঃখের র্কাহিনী
                                          কত।


                         আমি আকাশ হতে দেখেছি এ নগর-
                                শকুনীর শ্যেণদৃষ্টিতে-
                          বিলাসের বাহুল্য কতনা দেখেছি-
                               আর দুঃখ দেখেছি-দুচোখের
                                          বৃষ্টিতে।


         কত বাহারি গাড়ি দেখেছি-বাইক স্কুটার মারুতি কনটেসা-
                           আবার দেখেছি কত দুখী নরনারী-
                                    করে মাটির সঙ্গে
                                         মেলামেশা।


                  কত সুখী জোরা পাখি দেখেছি মাঠে ময়দানে-
                            অসুখের বার্ত্তা পেয়েছি-ভিখারির
                                        ভিক্ষাগানে।


           আমি উচ্ছল জীবন দেখেছি-হোটেল ময়দান রেস্তারায়-
                              মৃত্যুর উল্লাস শুনতে পেয়েছি-
                                 নগরের ফুটপাতে-ধুলায়
                                           ধুলায়।


           এ শহরে আমি এসেছি বিদেশী-চলে যাব হাসিকান্নায়-
                            কত সুখের স্মৃতি সাথে যাবে-
                        হয়তো বা সে সুখের স্মৃতি ভেসে যাবে
                                        দুঃখের বন্যায়।


           হাসতে চেয়েছি আমি এ মহানগরে-প্রাণের বন্যা দেখে
                                        দিকে দিকে-
                   আনন্দের সে গোলাপী রং-দুঃখের জলে
                                   বারবার-হয়ে গেছে
                                           ফিকে।


                    দুঃখ চাহি না গাহি আমি জীবনের জয়গান-
                               সুখের প্লাবনে ভেসে যাক-
                                   এ মহানগরীর জল
                                 বায়ু ফুটপাত-মাঠ
                                          ময়দান।


               আনন্দের গোলাপী রং এ রঙ্গীন হোক এ মহানগর-
                              প্রার্থনা করি আমি বেদেশী
                                        সওদাগর।


প্রিয়কবি মৌটুসি মিত্র গুহ(কেতকী) মহাশয়ার আজ প্রকাশিত "স্বপ্ন দেখা ররেছে জারি" কবিতার উত্তরে কাঁদতে কাঁদতে লেখা কবিতা।


                                  স্বপ্ন


               যদি স্বপ্নগুলি সত্যি হোত-জীবন হোত মিছে-
                        দুঃখ ব্যথা অনেক দুরে-
                            বিপদ যেত পিছে-


           উড়ে যেতাম চাঁদ আকাশে-জ্যোছনা নিতেম ধরে-
                      বুকপকেটে ভরে নিয়ে-দৌড়
                                 দিয়ে ঘরে-


            ডাবল ডাবল জ্যোছনা ঘরে-একটা চাঁদ একটা তুমি-
                     মন ভরিয়ে দুঃখ তোমার-মিটিয়ে
                              দিতেম মা মামনী।


              বাবার শোকে মুহ্য তুমি-মুছতে না আর শোক-
                         স্বপ্নে আমি মিলিয়ে দিতেম-
                               রইতো না আফশোস।


                 বাবা যেদিন গত হলেন-ব্যাঙ্ক ঋনের ফাঁদে-
                        সেই দিনটি মনে এলেই-মনটি
                                  মাগো কাঁদে।


                 দোকান বাড়ি ঝুললো তালা-তুমি আমি মাগো-
                        ফুট্পাতেতে আছার খেলাম-বললো
                                  ওরা ভাগো।


                তুমি মাগো কাজ করো যে-অনেক গুলি বাড়ি-
                       তবুও আমায় লেখাপড়া-দাওনি
                                    তুমি আড়ি।


                মন দিয়ে মা করবো পড়া-দিলেম কথা মা-
                            মস্ত বড়ো হবই মা-ঘুচিয়ে
                                    দেবো কান্না।


                এখন তো মা আঁচল তোমার-কিছুই পারি না-
                          তাইতো ভাবি স্বপ্নগুলি-সত্যি
                                     হবার ভাবনা।


                  যদি স্বপ্নগুলি সত্যি হোত-জীবন হোত মিছে-
                              দুঃখ ব্যথা অনেক দুরে-
                                  বিপদ যেত পিছে।


মোঃ মাজেদ হোসেন কবিতা মুখোশ কবিতার উত্তরে লেখা কবিতা।


                                     লাজ


                পশুর জগতে হিংসা নাই শুধু খাদ্য প্রাণের তরে-
                         যেমত তাদের দিলেন প্রভু-
                                 মন প্রাণ অন্তরে।


                   তৃণভোজি তৃণেই খুশী-মাংশাসী প্রাণ মারে-
                     পাপ কোনো নাই-পাপ কোনো নাই-
                                 শুধাও বিধাতারে।


                 কামধেনু রং দিলেন তাদের-কাম বাসনায় লিপ্ত-
                             লড়াই সেথায় হলেই কিবা-
                                   হিংসায় নেই লপ্ত।


                  কামের ক্ষুদা পেটের ক্ষুদা-বিধাতারি সৃষ্টি-
                            এই দোহেতেই শান্ত ওরা-
                                   নাই হিংসা অনাসৃষ্টি।


                      হিংসারহিত পশুকূল দিলেন বিভাবসু-
                                মানুষ কেন উপমাতে-
                                      বলবে পশু পশু।


                      চোর ডাকাত মন্দমতি-জঙ্গি হানাদার-
                           ওদের যদি বলই পশু-পশুর
                                      জাতের লাজ।


প্রিয়কবি গোপাল চন্দ্র সরকার মহাশয়ের আজ প্রকাশিত "পদ্ম বনে মত্ত হাতি"কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                                   একটা


             মন্দমতি মন্দমতি মন্দমতি-একটা কিমে জগৎজুরে-
                            জোরসে সাঁনাই বাঁজে-
                        একটা ডোনান্ড ধন্ধমতি-যুদ্ধ
                                   ধরে সাজে।


                একটা নিতাই জগৎজুরে-জয় গৌরাঙ্গ বুলি-
                         হরে রামো হরে রামো-সেই কি
                                  দারুন সুর তুলি।


                   একটা রাবন একটা সীতা-রামায়নটা গড়ে-
                             একটা মাতা কৈকেয়ীটা-
                                    মহাভারত জুরে।


                   একটা যীশু একটা বাণী-একটা জাতি গড়ে-
                               একটা হাসি দৌপদির ওই-
                                 যুদ্ধ বাধায় জোরে।


                 একটা ভাল একটা কালো-কোনটা নেবে ভাই-
                             ইচ্ছে তোমার-নাই বাঁধা নাই-
                                      প্রনাম আমি
                                            যাই।