প্রিয়কবি Bristy Mondol এর আজ প্রকাশিত কবিতা "জিগ্যাসা" কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                আধুনিক গদ্যছন্দ কবিতা প্র্যয়াস ১১


                                 সংহার।


               যদি জানতে চাও আমি কে-তবে জিগ্যেস কর-
                                ওই দাবানলকে-
                        যদি জানতে চাও আমার নাম-
                               তবে জিগ্যেস কর-
                                  ওই সুনামীকে।


                    যদি জানতে চাও-আমার এত রাগ কেন-
                              তবে জিগ্যেস কর-
                               বিপন্ন মানবতাকে।


                    যদি জানতে চাও-আমার পরিনতি-
                     তবে জিগ্যেস করো-আকাশ বাতাস
                               নক্ষত্র নিহারিকা।


              তপ্ত লহু আগুন জ্বলে-দীপ্ত শিখা প্রেম বলয়ে-
                         দানব যেথা হানছে আঘাত-
                           মানবতার শিখর তলে।


                      হাজার প্রাণের করুন গতি-
                            জাতের নামে জাত
                                   বজ্জাত-


             হিংসা দিয়ে ভরছে ভূবন-দাবানলের সেই আগুনে-
                        রক্ত হোলি মাতবো যে প্রাণ-
                              করতে দানব সংহার।


প্রিয়কবি মনোজ ভৌমিক(দুর্নিবার কবি)র আজ প্রকাশিত "কালো বিড়ালটা কেটে ছিল পথ" কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                  আধুনিক গদ্যছন্দ কবিতা প্র্যয়াস ১2


                               কালো বেড়াল


                 মানুষের বিশ্বাসবোধে আঘাত করতে চাই না-
                       কালো বেড়াল পথ কাঁটলে কেউ
                               যদি দাঁড়িয়ে পরে-


                     অন্য কেউ সে পথ অতিক্রম করলেই
                                পুন চলাচল শুরু-
                                  ক্ষতি নেই


                     কিন্তু যখন খবরের কাগজে দেখি-
                         ডাইনি সন্দেহে অমুক মহিলাকে
                              পিটিয়ে মেরে ফেলা
                                     হয়েছে-


                    আগুন জ্বলে মনে-রক্ত ফুলে ওঠে-
                      জ্বালিয়ে পুড়িয়ে রাখ করে দিতে
                                    ইচ্ছে হয়


                       এসব অন্ধ কুসংস্কার গুলিকে।


                   যেখানে মনুষ মনুষ্যত্ব হারিয়ে ফেলে-
                       যেখানে একের বিশ্বাস অন্যের
                              প্রানহানির কারন হয়ে
                                      ওঠে-


                           যেখানে হানাহানি বিদ্বেষ
                             বিষ ছেয়ে যায় অন্তর-
                               মনে জেগে ওঠে
                                     প্রতিঘাত-


                    কালো বেড়াল পথ কাঁটা ভীত লোক
                            দাড়িয়ে পরতে দেখলে-
                         চাবুকে চাবুকে লাল করে দিতে
                                     ইচ্ছে হয়।


                             আসুন হাতে হাত মিলাই-
                                     চাবুক ধরি
                                        আজ।


প্রিয়কবি এম,এ, মতিন মহাশয়ের প্রকাশিত অনুকাব্যঃ দারিদ্র্যতার প্রেম কবিতার উত্তরে আজ কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                                 প্রকৃত বন্ধু


                   বন্ধুরো পথ চারনায়-যে জন আগে আসে-
                               হাতে হাত ধরে-
                           সে জন প্রকৃত বন্ধু হয়-
                                 আর কেহ নয়।


               জীবনেতে সংঘাতে-শত কত দুখ আসে-অবারিত-
                           শান্তিরো বাণী কাঁদে-
                             গ্লানীবোধ অন্তর-
                 ফুলে ফুলে শত ধায়-গরলেতে ভরে
                                মনো প্রান্তর।


                সে বিজনো কাননেতে-দুখ প্রাণ মন মেতে-
                               চিন্তনে কুন্ডল-
                 ধুম্র সে জ্যোতিকায়-ফুলে ঘুরে অতিকায়-
                            হৃদ প্রাণ আভোরন।


                     অস্থির প্রাণোগতি-নাই নাই নাই-
                             সম্পৃতি ভাতৃত্য
                                   বন্ধন।


                দুরে দুরে সরে যায়-একে একে স্বজনায়-
                           বিজন সে কাননেতে-
                              একাকিতে ক্রন্দণ।


                 সে পথ চারনাতে-যে জন আগে আসে-
                              হাতে হাত ধরে-
                         সে জন প্রকৃত বন্ধু হয়-
                                আর কেহ
                                    নয়।


প্রিয়কবি মোঃ আনোয়ার সাদাত পাটোয়ারী রিপন (মঞ্জুবাক কবি)র আজ প্রকাশিত "মৃত্যু হবেই" কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                          পারিজাত কানন


           কবিতায় কবিতায় এ বাণী প্রচার করেছি অনেক-
                 ঐ শ্মশান ভূমি দেখিয়েছি বারে বার-
                          জীবনের পরিনয়-


           কিন্তু কিছুই কি পেরেছি পরিবর্তন-ভবের হাট-
               সে গল্পের ছলে দেখিয়েছি-ছলা কলা বলা-
                    বিসয় আসয়-লাভ ক্ষতির
                           শেষ পরিনাম-


            কিছুই কি পেরেছি পরিবর্তন পরিবর্ধন পরিমার্জন-
                    না! কিছুই পারিনি করিতে-
                               অর্জন।


              মান আর হুষ মানুষ-এ দুটোর আর অবশিষ্ট
                        বলে আর কিছুই নেই।
                মানুষ ছুটে চলেছে এক তমসঘন
                        তিমির রাত্র উৎযাপনে-
               যেথা কৃত্তিম আলোকোসজ্জায় মধুময়তার
                          অপরুপ কিরনর্ছটা-


                     যেন যেন যেন-স্বর্গউদ্যান
                             পারিজাত কানন।


                কামনার বশীভূত অনন্ত আনন্দে মেতে-
                  ভুলে যায়-ভুলে যায়-জীবনের শ্বাশত
                                সরল ব্যকারণ।


               অগতির গতি নারায়ণ-কভু কি ভেবেছো আপনে-
                        স্বয়নে স্বপনে-করেছো কি মানব
                                   ধর্ম নির্ধারণ-


                       কাঁদিছে যাহারা সন্মুখে তোমারি-
                         কভু কি সঁপেছো আপনে তাহারি-
                               কভু কি দিয়েছো
                                     নিবারন-


                      কভু কি আপনে ঈশ্বর ভেবেছো-
                          করুনা করেছো পরিধান-
                     কভু কি প্রভুরো বাণী শুনিয়াছো-
                                দিতে হবে কিছু
                                  অবদান।


প্রিয়কবি মৌটুসি মিত্র গুহ (দেতকী) মহাশয়ার আজ প্রকাশিত "হিসেব মেলেনি" কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                                 নিরশন


                    এসো এসো এসো প্রনতি তোমায়-
                                 করি আহ্বাণ-
                        চিরতি দিনতি করিয়াছ তুমি
                                   মতিভ্রম-


                       আজিকে ধরা প্রফুল্ল অন্তরে-
                             জাগিছে প্রেমেরো
                                    দীশা-


                   আজিকে ভ্রমেরো কিনারে তোমারো-
                             হাজারো দীপ্তিশিখা-


                      ভ্রম বিনাশিতে রামধেনু-আজিকে
                              ধরায় জাগাবো সখী-
                       আজিকে ধরায় প্রেম ভালবাসা-
                                 জাগিতে সম্পৃতি


            অসহ জ্বালাতে জ্বলেছি কাল-আজি হবে অবশান-
                     জ্বালিতে প্রেমেরো ভূবনো ভুলিতে-
                                আজি হবে
                                   নিরশন।


প্রিয়কবি গোপাল চন্দ্র সরকার মহাশয়ের আজ প্রকাশিত "ভানুমতীর পিটারা-(ব্যঙ্গ) কবিতার উত্তরে কমেন্ট বক্সে লেখা কবিতা।


                              ভবিতব্য


               শ্যামলকান্তি সৌম্যদেহ-তেজস্বী মুনি-
                    হিমালয় পাদদেশে পর্ণকুটির-
                          জ্যোতিপ্রভা গুণি।


           ছাত্ররা সব ছালবাকল পরহিত-গোপনাঙ্গ ঢাকা-
                     শুনিতেছে সে মুনির সমীপে-
                          সে দিনের কতকথা।


            মানব ছিল এক হিংস্র জাতি-সদাই যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা-
                       হিংসা দ্বেশ বিষবানেতে-
                          কাটতো সারাবেলা।


                ব্রমহা দিলেন ধরা তাদের-তপস্যাতে মুগ্ধ-
                      ওটাই ওদের কাল হোল শেষ-
                              মানবতা রুদ্ধ।


                  আকাশ পাতাল যুদ্ধে মাতে-উত্তরে দক্ষিনে-
                          মারল সে বান ব্রমহ ধরা-
                              হিসেব গুনে গুনে।


                  সেই আগুনে তেজস্কীয় বিকিরনের ঢল-
                        মানব জাতি ধ্বংস হোল-
                                জীবন অচল।


                পাঁচশো বৎসর বন্ধ্যা ছিল এই পৃথ্বীর বায়ু-
                            একটু নরম হল যখন
                                রুষ্ট জলবায়ু।


                   যে কয় প্রাণ টিকে ছিল পাহাড় গুহার সনে-
                        তাদের পুনঃ করিতে মানুষ-
                              এলাম নেমে ভুমে।