চেয়ে দেখো, হামাগুড়ি কিংবা বুকে হেঁটে
তোমার মাঝে প্রতিনিয়ত খুঁজে ফিরি
পৃথিবীর চিরচেনা শান্তির পথ
তোমার ঐ বৃষ্টি ভেজা রঙিন আঁচলে
আগামীর স্বপ্ন বুনি
বাহু দুটি প্রজাপতির বর্ণালী পাখনা
সেথায় সবুজ পৃথিবীর চিত্র আঁকি ।


এ কী ! ভুল পাঠে খাদের কিনারে
ক্রমেই গাঢ় হয় নিঃশ্বাস
ধীরে ধীরে ডুবে যাই কালের অন্ধকার গহ্বরে
একেবারেই অতলে
চোখে ভাসে, শুধুই ভাসে
মলিন চেহারার করুণ মুখচিত্র
যেন ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিক্ষিপ্ত শুকনো পাতা
খসখসে কর্কশ আওয়াজে
কেবলই শোনা যায় আর্তনাদের স্বর ।


ভাঁজের পর ভাঁজে হে অবগুন্ঠিতা
পর্দা খোল, আমি এক সরল জীবনাচারী
কুহেলিকা রহস্যের
অতল বিভ্রমে কেবলই হারিয়ে যাই
তোমাকে ব্যাখ্যা করি এমন সাধ্য আমার নেই ।


ফিরোজ, সিদ্ধেশ্বরী, ২৮/০৪/২০১৭