এক তিমির ধরণীর মৃত্তিকার বুক চিরে
ভোরের অংশুর কিরণে আলিঙ্গন করেছিলাম,
আজও নিশির শেষে দ্বিজ ডাকা ভোরে
ভানুর জ্যোতি গায়ে মেখে রৌদ্রস্নান করি।
এখন আগের মতো ভোরে ডাকে না পরভৃত
এর মধ্যে কেটে গেছে অনেক গুলো বছর,
এখোনো প্রতিদিন পড়ন্ত বিকেলে দিগন্তের
বিষণ্ণ প্রভায় করি সদনে ফিরে যাবার চেষ্টা।
আজ জীবনের বাস্তকব ও ঠিন পথে চলতে
সাহস আর মনোবলের যে বড়ো প্রয়োজন,
সকলের মাঝে আশ্চর্য কিছু করে যেতে চাই
রেখে যেতে চাই ভুবনে আমার কবিতা!
পথ চলতে অবশেষে যেন না পড়ে দীর্ঘশ্বাস
তারপর খুঁজে নেব অনন্ত চিরস্থায়ী নিবাস!
বিবর্ণ ক্ষিতির বুকে রক্তমাংসের দেহ রেখে
আমি সেই অনন্ত মহাশূন্যের পথে পাড়ি দেবো!


রচনাকালঃ- ২৩/০৬/২০১৭