উনিশ শত সাতচল্লিশ থেকে শুরু করে আজ অবধি,
সাক্ষী আছে পাহাড় পর্বত কত সাগর নদী।
রক্তকণা বয়ে নিতে নদী হয়নি অস্থির,
জানতো নদী রক্তে মিশে আছে বাংলার বীর।
পাহাড় দেখেছে অনেক কিছু তবু অশ্রু আসেনি চোঁখে,
কত শহিদের দেহখানি ঠাই দিয়েছে তার বুকে।
কিসের নামাজ কিসের জানাজা গায়ে না দিয়ে কাপন,
এক কবরে কত শহিদকে করা হয়েছে দাফন।


বায়ান্নতে মায়ের ভাষা রক্ষা করতে গিয়ে,
রফিক জব্বারের মত অনেকের প্রাণ আসতে হয়েছে দিয়ে।
যুক্তফ্রন্ট আর মুজিবনগর সরকার করে গঠন,
একুশদফা ভিত্তির উপর চুয়ান্নর নির্বাচন,
ছয়ষষ্টিতে ছয়দফা শুনে কেউ থাকেনি স্থীর,
শপথ করে পথে নামে বাংলার সকল বীর।
উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান আরো কত আন্দোলন,
সকল কথা শুনলে আজো শিউরে উঠে মন।
ছিলনা পরিচয় বুদ্ধিজিবী, কিংবা মাঠের চাষী,
সবাই বলেছেন মায়ের সন্তান আমি মাকেই ভালোবাসি।


সত্তরেতে  দলীয়ভাবে করে নির্বাচন,
শেখ মুজিবুর জয়লাভ করে পাননি যোগ্য আসন।
পরে দিলেন তিনি ভাষন,
এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম,
এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম।
সাত মার্চে বঙ্গবন্ধুর শুনিয়া এমন বাণী,
হাসি মুখে যুদ্ধে গিয়ে দিয়েছে প্রাণখানি।
মাকে বলেছে মাগো আমি ফিরে আসবো আবার,
স্ত্রীকে বলেছে যতনে রাধিও আমার প্রিয় খাবার।
ভাজ্ঞ দোষে অনেকই আর ফিরে আসেনি,
শুনলে চোঁখে ঝড়ে পানি, বাংলার করুণ কাহিনী।


প্রথম থেকেই পাকিস্তানিরা করেছে বাংলা শোষন,
ঠিকমত পায়নি বাঙ্গালী খাবার কিংবা ভুশন।
কত রাজাকার করেছে আবার তাদের সাহায্য,
ওরা পাপি বলেই গ্রায্য।
পচিঁশে মার্চ কালো রাতে নির্মম হত্যা,
গুলি ছুড়ে ওরা উড়িয়ে দিয়েছে কত জনার মাথা।
ছাব্বিশে মার্চ বারোটার পর প্রথম প্রহরে,
জাতির পিতা স্বাধীনতা দেন ঘোষনা করে।
ওরা ছিল কত পাষান,
ইতিহাসে তখন নির্মম ছিলো পশ্চিম পাকিস্তান।
যে মেয়েরা লজ্জায় থাকতো আড়ালে সর্বক্ষণ,
সেই মেয়েকেও তখন ওরা করেছে ধর্ষণ।
যারা হারিয়েছে  নিজের মান অনেকের হয়েছে মরণ,
তারা আজ বীরাঙ্গনা নারী গৌরবের উদাহরণ।
দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধের পর বয়ে গেলো অরেক ঝড়,
বুদ্ধিজিবীরাও বাঁচতে পারেনি চৌদ্দই ডিসেম্বর।


দেখে বাঙ্গালীর আত্মবলি দেখে জীবন বাজি,
আত্ম সমর্পন করতে বাদ্য হলেন নিয়াজী।
লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে এত আন্দোলনের পর,
বিজয় পতাকা উড়লো শেষে ষোলই ডিসেম্বর।
মা বোন যারা সুরক্ষার জন্য ছিলেন ভারত বর্ষে,
নিজের দেশে ফিরলেন শেষে আনন্দ উল্লাসে।
শত কবিতা লিখে বাংলার ইতিহাস হবেনা শেষ,
অনেক ত্যাগে অর্জিত মোদের সোনার বাংলাদেশ।