জীবন নদীতে বৈঠা বাওয়া
তুচ্ছরূপী মাঝির খড়িপাতার ঘর,
শত প্রচেষ্টা ব্যাহত করে
অসময়ের কাল বৈশাখী ঝড়!
কিয়তে্ হার মানতে নারাজ
নিয়তির নিষ্ঠুর কবল,
অতি অল্পতেই আসে যদি ঝড়
শক্তিবলে প্রবল।।


প্রলয়ে ভাঙে এপার ওপার,
গড়েও বহুবার...
বিপাকে পড়াতেই দৃশ্যায়ন হয়
কত তরী ডিঙি রণতরী
শোঁ শোঁ করে অদৃশ্য হতে,
উদ্ধারকারী জাহাজও তখন বেরশিকতার চিত্তে।


কখনো বা ভাঙ্গনের শেষে
পলিমাটি পেয়েছে উপহার!
ভালোবাসার চাষযোগ্য করে
দিয়েছে হৃদয়ের জমি,
শিখিয়েছে প্রণালি নতুন করে ঘর বাধার।


পুনরায়,
জীবন তরীর সেই নাছোড়বান্দা মাঝি
পাড়ি জমায় নতুন কোন ভাঙন খেলাঘরের দিগ্বলয়ে! পন্ড হবে জেনেও, নিয়তির নিষ্ঠুর কবলকেই স্বার্থকতা  দিতে।।
______________
১ম প্রকাশঃ ৬ই মার্চ ১৭ইং