সব কিন্তু কাব্য নয়, কবিতাও নয় , দ্বন্দও না
এককোষী অভূক্ত কথাদের শরবিন্যাস ;
আমার চলে যাওয়া,ঘুম,খাওয়া, হাঁটা চলা নিয়ে
অভিযোগ বিস্তর ,নিষ্ক্রমণ কালে কবে কার উন্নাসিক জিভ্
আটক ছিল মহাবোধি তত্ত্বে  ;
আর দৃশ্যের অগোচরে তেপান্তরের গল্পে-
হাডুডু, কবাডির লঙ্গরখানা জুড়ে স্পেস বক্সে
নির্বিকার কমেন্টেটরের স্পাইসি সংলাপ...........


হ্যালো.......হ্যলো........অডিটোরিয়ম আমাকে শুনছেন ?


বলব কেন? মধ্যে বিরাট উর্দির টেডিবিয়ারের লম্ফিত ভ্রূ যুগল.....
এ অামার শব্দ,অক্ষর কোনটাই নয় ভেবে
প্রান্তিক সাইরেনে জুড়ল রোমান্স
হাসতে হাসতে আমি পিছু ফিরলাম , ছন্দে ,লয়ে বিশ্রাম জুড়ে
তিনকাল থাকলাম অপেক্ষায়,আমার মেঠো বাড়ীর ছাঁতে-
চাঁদের এন্টেণায় সর্বক্ষণ রোদ ছায়ার লুকাচুরি খেলা
বাহানার সৌরমঞ্চে বেশ অনেকটা সময়।


তখন স্পেস জুড়ে মত্ত তান্ডব
অস্তিত্ব নিয়ে, দাপট নিয়ে, দ্বিধা নিয়ে ভুগছিলাম যখন
প্রবাসী প্লেয়ারদল্ ভিন্ দেশী ঝান্ডায় তুফান এল
বুকে গিজ্ গিজ্ করছে ত্রিবর্ণ সংলাপ
তখনো সংশয়ে ?  ওদের গতি প্রথম হল, আমাদের মন্থর.......


বজীগর তখন প্রবুব্ধ যুগকে বলছেন প্রৌঢ়ত্ব
আমার অবস্থাণ জুড়ে কাটাকুটি, লাঠালঠির মহড়ায়
ব্যপ্ত স্পেস্ আরেকটি ধ্বস্ ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনতে চাইছে...


এইমাত্র আমি চলা শুরু করব ,আমার কৌমার্যে্র ছলায় বেঁধে রাখা নিক্কনে পঞ্চ প্লাবনে ধরা দেবে গান্ধর্ব কুমার
আর সে দ্যুতির আলোকপ্রভায় আবিষ্কৃত হবে আরেক
ধরণীর; দ্বিধা দ্বন্দ ভুলে স্ফটিক ডাবল অর্গানাইজেশন ।


তাই তির্যকভাবে রাখা হল ঘৃতকুমারীর আয়ুর্বেদ
রাত্র দিন পাহাড়ায় আবু সিংয়ের ডলার ডলার আহুতি
যদি ধরা যায় নিশিগন্ধার আবিষ্কার ,নিদেনপক্ষে সূত্রলিপি
তবে শহরে আসবে নুতন জোয়ার-
ডাবল ,ট্রিপল ফর্মূলা রেঞ্জমেন্ট ।


গবেষণায় প্রকাশ যা মস্তিষ্কে কোষের পরিমাণ বাড়িয়ে ডাবল, ট্রিপল করবে রাতারাতি।
তখনো নির্বিকার কমেন্ট .........." হ্যলো আমাকে
শুনতে পাচ্ছেন" ?