৯২.
কবি তাপস গুহঠাকুরতা রচিত ভালোবাসা সিরিজের ১ থেকে ১২ কবিতাগুলি পাঠ করলাম l প্রতিটি ছোট্ট কবিতায় ভালোবাসার এক একটি অনুভব সুন্দর শব্দ চয়নে, সরল ভাব প্রকাশের দ্বারা কবি ব্যক্ত করেছেন l ভালোবাসার প্রথম অনুভব, তার প্রেক্ষাপট, প্রতিটি ছোট ছোট উপলক্ষ্যে তার বিস্তার, সংকোচ, জড়তা, সাহস, সরলতা - সব এক একটি করে নিজ নিজ রূপে এসেছে l কবির প্রেম ও ভালোবাসার অভিজ্ঞতা নিত্য সমৃদ্ধ হয়েছে l এই অনুভবের, তার প্রকাশের কোনো শেষ নেই l অনন্ত তার যাত্রা l


ভালোবাসা এক মানবিক অনুভূতি l এক ধরনের মায়া l এখানে এক পুরুষ একজন নারীকে অন্য সব নারী থেকে পৃথক করে দেখে এবং সুন্দর দেখে l একই কথা খাটে নারীদের ক্ষেত্রেও l একজন নারী ভালবাসার সম্পর্কে একজন পুরুষকে অন্য সব পুরুষ থেকে পৃথক দেখে সুন্দর দেখে l এটি আবেগকেন্দ্রিক একটি অভিজ্ঞতা। বিশেষ কোন মানুষের জন্য আবেগের শক্তিশালী অনুভব ও বহিঃপ্রকাশ l এই অনুভব গভীর l বিশেষ কারো সাথে নিজের সকল মানবীয় অনুভূতি ভাগ করে নেওয়া, এমনকি শরীরের ব্যাপারটাও এই ধরনের ভালোবাসার অন্তর্ভুক্ত l এই সম্পর্ক পুরোপুরি জৈবিক বা শারীরিক নয় আবার পুরোপুরি মানসিকও  নয় l উভয়ের সংমিশ্রণ l প্লেটনিক ভালোবাসাও হয় l যেখানে শরীর বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ নয় l কিন্তু অধিকাংশ প্রেম ভালোবাসার কবিতায় শারীরিক আকর্ষণ বিষয়টি যুক্ত থাকে l কবি হুমায়ুন আজাদ এই জট খুলেছেন এইভাবে, " সুন্দর মনের থেকে সুন্দর শরীর অনেক আকর্ষণীয় l কিন্তু ভন্ডরা বলেন উল্টো কথা l" অন্যত্র বলছেন, "অধিকাংশ রূপসীর হাসির শোভা মাংশপেশীর কৃতিত্ব, হৃদয়ের কৃতিত্ব নয় l"


কবি তাপস গুহঠাকুরতার ভালোবাসা শীর্ষক কবিতাগুলিতে ভালোবাসার অনুভবে দেহকে অস্বীকার করা হয় নি l ১ থেকে ১২ প্রতিটি পর্বে যেভাবে ভাবনাটি বিকশিত হয়েছে সেগুলি নিম্নরূপ l
১) প্রথম দেখায় মুগ্ধ হওয়া, অবাক চোখের সঙ্গে চোখ একাকার, লজ্জায় নত চোখ, অন্তে ভালোবাসার অনুভব l
২) অনভিজ্ঞ অভিমানী প্রেমিকের ভালোবাসা আড়াল করার ব্যর্থ প্রয়াস l প্রিয়র প্রেম নিবেদনে সব অভিমান অশ্রু হয়ে ঝরে পড়া l ভালোবাসা উন্মোচিত l ঝর্ণার মতো প্রবাহিত l
৩) ভালোবাসা জন্ম জন্মান্তরের সম্পর্ক l তাই যে কোন জীবনে ভালোবাসার জনের সন্ধান যখন মেলে, তাকে মনে হয় পরিচিত l যেন কতো জন্মের চেনা l মনের সব অবস্থায়, খুশিতে বা বিষন্নতায়, তার সঙ্গে মিলিত হবার জন্য মন চঞ্চল হয় l কারণ, প্রেম সম্পর্কের এটাই গন্তব্য l দুঃখ সুখে মিলন হবেই l এই মিলনকে ভবিতব্য করেই পথে পথে, লোকালয়ে পরস্পরের সন্ধান চলে সব জীবনে l
৪) প্রিয়ার সংস্পর্শ জীবনকে অর্থবহ, মধুময় করে তোলে l প্রকৃতির রঙ রূপ গন্ধ ধরা দেয় l আর প্রিয়া যখন সাথে নেই, জীবন নীরস, মন উদাস, একাকীভাব, কিছুই ভালো লাগে না l
৫) প্রিয়া কাছে নেই বলে বৃষ্টি, বরফপাত প্রভৃতি প্রাকৃতিক বিরল ঘটনা থেকে যে আনন্দ নেবার কথা, তা হয়ে ওঠে না l
৬) প্রকৃতির সঙ্গে মিশে যাবার বাসনা জাগে যদি প্রিয়া সঙ্গে থাকে l
৭) ভালোবাসার অনুভবের শেষ নেই l একটার পর একটা জীবন আসে l যুগ পালটায় l ভালোবাসার কথা অনন্তকাল ধরে চলতে থাকে l
৮) রাতের জ্যোৎস্নালোকে রোমান্টিক পরিবেশে সহজ সরল কথাটি বলা হয় - আমি তোমাকে ভালোবাসি l
৯) মন যদি হয় অভিন্ন, দূরত্ব ভালোবাসার পথে অন্তরায় হয় না l আর মন যদি না মেলে, তখন নিকটও দূর হয়ে যায় l ভালোবাসা সদা ভালোবাসা শেখায়, ঘৃণা নয় l
১০) ভালোবাসা সর্বজীবে বর্তমান l এর ভাষা সহজ, সরল, সকলের বোধ্য l তাই পশু, পাখি সকলেই এই ভাষার পাঠ নেয় l
১১) ভালোবাসা শুধু সুখ দেয় না l কষ্টের অনুভবও দেয় l কিন্তু যারা প্রকৃত প্রেমিক, ভালোবাসার জন্য যে কোনো কষ্ট স্বীকার করতে তারা সদা প্রস্তুত l
১২) ভালোবাসার নিবেদন প্রিয়ার শরীরে ঝড় তোলে, রোমান্স সৃষ্টি হয় l সমস্ত শরীর সেই অনুভবের আবেশে বিভোর হয়ে থাকে l এভাবেই ভালোবাসার পরশে রাত্রি, দিন, জীবন অতিবাহিত হয় l


সাধারণের ভালোবাসায় শারীরিক আকর্ষণ এক অন্যতম অনুঘটক l এর সঙ্গে থাকে মানসিক ও হৃদয়গত আবেগ l এটি একটি ব্যক্তিগত অনুভূতি যা একজন মানুষ অপর আরেকজন মানুষের প্রতি অনুভব করে। কারো প্রতি অতিরিক্ত যত্নশীলতা, প্রতিক্ষেত্রে কারো উপস্থিতি অনুভব করা ভালোবাসার সাথেই সম্পর্কযুক্ত।  ভালোবাসা নিঃস্বার্থতা, বন্ধুত্ব, মিলন, এবং পারিবারিক বন্ধনের সাথে গভীরভাবে যুক্ত।


ভালোবাসার কথা শেষ হয় না, কবি তাপস গুহঠাকুরতা বলেছেন l তাই তাঁর ভালবাসা সিরিজের কবিতাগুলি আরো বহুকাল চলবে ধরে নেয়া যায় l কিন্তু এই আলোচনা অনন্তকাল চলতে পারে না l
সুন্দর ভালোবাসা সিরিজের কবিতাগুলির জন্য কবিকে শুভেচ্ছা জানাই l