৩৭. কবিতার নাম - গন্তব্য
কবির নাম - খলিলুর রহমান


আলোচনা -


চলাটা আমাদের হাতে l কোথায় পৌঁছুবো, কি পাবো - সব রহস্যময় l চলার পথে খেলা করি যা কিছু সঙ্গী তার সঙ্গে l কখনও চলা থামিয়ে চলন বিশ্লেষণ করি l কিন্তু রহস্যের জট খোলে না l রাতের অবসানে দিবাকরের প্রভায় নিষ্ঠা সহকারে যে যার কর্তব্য করে যায় l প্রাপ্তির চরিত্র পরিষ্কার নয়, রহস্যে ঘেরা l কিন্তু চলায় ক্লান্তি নেই l
গন্তব্য সবার সমান নয় l মানুষ দম দেয়া গাড়ির মতো l যার গাড়িতে যতটা দম ভরা আছে, কেউ জানে না কার কতটা ভরা আছে, সে ততটাই চলে l জীবনসায়াহ্ণে কারও চলা থামে, জীবনের রূপ রস গন্ধ, আনন্দ বেদনা সব পূর্ণ ভোগের পর l আবার অকালেই কারও চলা থেমে যায়, জীবনদীপ নিভে যায়, অনেক অপ্রাপ্তির বেদনা নিয়ে, পরিজনকে কাঁদিয়ে তারা চলে যায় l জীবনে কেউ সফল, কেউ ব্যর্থ l যদিও জীবনের ধন কিছুই যায় না ফেলা, তবু জীবনের অন্তটা সকলের কাছেই রহস্যময় l
জীবনে চলার এই পথে শুধু ভালবাসার সম্পর্কটাই খাঁটি l জীবনের অন্ত যতই রহস্যময় হোক, আমাদের এই চলাটা কখনও মিথ্যা নয় l যা রহস্য, থাক তা রহস্য, চাই না তার ভেদ l
"আমার এই পথ চলাতেই আনন্দ" l
অসাধারণ জীবনদর্শন l আধ্যাত্মিক ভাবনায় পূর্ণ l এরকম কবিতা পড়লে জীবনবোধের ব্যাপ্তিটা অনেক বেড়ে যায় l আর কবিকে শুধু শুভেচ্ছা নয়, গভীর মননশীল রচনা উপহার দেবার জন্য, শ্রদ্ধা, শ্রদ্ধাপূর্ণ প্রণাম জানাই l


কবির পাতায় এই আলোচনামূলক মন্তব্যের উত্তরে কবিতাটির মূল ভাব কবি বিশ্লেষণ করেছেন এইভাবে,


খলিলুর রহমান ২২/০৪/২০১৭, ০৪:৫০ মি:
"মাটি ও মানুষই মানুষের আসল, নিষ্চিত গন্তব্য। বাকি সবই রহস্যময়।"


কবিতার পাঠোদ্ধারে আসরের কবিগণ যদি আলোচিত কবিতাটি সম্পর্কে এইভাবে তাদের মনোভাব প্রকাশ করে পাঠক-আলোচকদের প্রতি সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেন, তাহলে আধুনিক কবিতা সম্পর্কে যে অভিযোগটা করা হয়, আধুনিক কবিতা নাকি দুর্বোধ্য, সংবাদপত্রের স্তম্ভের মতো কবিতার আকারে সাজানো কিছু অর্থহীন, ভাবহীন কথার সমষ্টি - এই জটটাই কেটে যাবে l আধুনিক কবিতা কিছু পাঠকের কাছে যদি তার অর্থ, তার আনন্দভাব তার নিজ অবয়বে মেলে ধরতে না পারে. সেক্ষেত্রে কিছু উৎসাহী পাঠক-আলোচক এবং কবি স্বয়ং যদি সেই কবিতার পাঠোদ্ধারে এগিয়ে আসেন , সে তো কবিতার পক্ষে ভালোই l এতে করে কবিতা পাঠকের সংখ্যা বাড়বে এবং কবিতা চর্চার পথ প্রশস্ত হবে l