৮১.
স্বপ্ন এবং স্বপ্নভঙ্গের গল্প l আশা এবং হতাশার কবিতা l রোমান্টিক ভাবনা ও কঠোর বাস্তবতার সংঘাতের কাহিনী l আশার ফানুসে সঙ্গ জোড়ার স্বপ্ন, সেই স্বপ্ন ভেঙ্গে যাওয়া, বিশ্বাসভঙ্গের কারনে রাগ ঘৃণার অনুভব সত্বেও প্রিয়াকে ক্ষমা করে দিয়ে একা, সম্পূর্ণ একা থাকার সংকল্প l যথার্থ চিত্রকল্প নির্মাণ দ্বারা মনের বিভিন্ন অবস্থার সুন্দর প্রকাশ l


মানুষ তার নিজ ধর্মে স্বপ্ন বিলাসী l মনের ইচ্ছা পূরণ করে রঙ বেরঙের স্বপ্ন বুনেন l স্বপ্নের সেই গন্তব্য অসীম l চাহিদার প্রতি বিন্দু স্পর্শ করে প্রিয়াকে নিয়ে সর্বোচ্চ সুখ ও শান্তি প্রাপ্তি লক্ষ্য l দিগন্তের শেষ প্রান্তরেখা যেখানে আকাশ মাটিতে এসে মিশেছে, অর্থাৎ যার পরে আর কিছু চাওয়ার থাকে না, পাওয়ার আর কিছু বাকি থাকে না, সেই চরম প্রাপ্তির লক্ষ্যে তিনি স্বপ্ন রচনা করেন l পাহাড়ের ঢাল বেয়ে ঝর্ণা যেখানে নদীর রূপ নিচ্ছে সেখানে আকণ্ঠ পান করে তিনি তাঁর প্রেমতৃষ্ণা নিবারণ করবেন l ভোগের চরম সীমা স্পর্শ করবেন তিনি l তাঁর চাওয়ার কোনো সীমা থাকবে না l সাগরের ঢেউ ভেঙে দূর দেশে যাবেন, চাঁদ স্পর্শ করে ফিরে আসবেন l
কিন্তু কবি অনুভব করেন তাঁর সব স্বপ্নই অলীক l বাস্তবে পূরণ হবার নয় l তাঁর মনের যে ইচ্ছা যাকে ঘিরে তিনি স্বপ্ন দেখেন তা ব্যর্থ মনোরথ l জিন যেমন বোতলে বন্দী থাকে, তাঁর স্বপ্ন আশাগুলো তেমনই তাঁর মনের মধ্যেই আবদ্ধ থাকে l তাঁর সঙ্গে যেন এক পরিহাস চলে l স্বপ্নের জাল বোনা শুরু হতেই জাল ছিঁড়ে যায় l নদীর কিনারেই যেন সব উচ্ছাস ভেঙ্গে যায় l নদী পার হওয়া হয় না l স্বপ্ন পূরণ হয় না l যেন তাঁর পায়ে শেকলের বেড়ি পরানো l  যত দায়, দায়িত্ব কর্তব্য, সংস্কারের বাঁধনে বন্দী l আশা হতাশার দোলাচলে চলতে চলতে ক্লান্ত হয়ে পড়েন তিনি l ধীরে ধীরে সব আশা ত্যাগ করেন l  
একলা চলার সংকল্প করেন l অনেক দূরে একা যুক্তি ও  লক্ষ্যহীনভাবে কোনো সবুজ বনানীর কোলে, ফুল কুসুমিত  কোনো গাছের ডালে, নদীর কূলে জীবনের শেষ দিনগুলি অতিবাহিত করতে চান l সেখানে নতুন আশার আলো নিয়ে কোনো সকাল আসবে না তাঁর শূন্য জীবনে l কেউ নিদ্রাভঙ্গ করবে না l


নিজের স্বপ্ন ও আশাগুলি ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাবার জন্য কবি ক্ষুব্ধ হন l তাঁর সঙ্গে বিশ্বাসভঙ্গ হয়েছে এরকম মনে হয় তাঁর l সমস্ত হৃদয় জুড়ে একরাশ ঘৃণা, বেদনা আর আক্রোশ জন্ম নেয় l হৃদয়ের গভীরে নামে অবিরল অন্ধকার l রাগে উত্তেজনায় বারুদের স্তুপে জ্বলন্ত মশাল
বলে নিজেকে মনে হয় তাঁর l এত রাগ, উত্তেজনার মুহূর্তেও প্রিয়ার ক্ষতি করার কোনো চিন্তা আসে না তাঁর l তাঁর উত্তেজিত সত্তা যাতে কোনো বিপর্যয় না ঘটাতে পারে, কারো কোনো ক্ষতি না করে ফেলে, তিনি নিজে যাতে রাগের বশে বেসামাল না হয়ে পড়েন, তাই তিনি নিজেকে শেষ করে দিতে চান l তাঁর বেদনা তিনি নিজের মধ্যেই আকণ্ঠ পান করেন, বিষের প্রভাবে নীল রঙে বিলীন হয়ে যান l অভিমানহত কবি বলেন নিজের সত্তার সমাপ্তিতে জগতের কোনো ক্ষতি হলো বলে তাঁর মনে হয় না l


প্রেম শুধু কাছে নিয়ে আসে না l কখনও দূরেও ঠেলে দেয় l দূরে গিয়েও প্রেম তাঁর ভালবাসার জনের কোনো ক্ষতি কল্পনা করতে পারে না l প্রত্যাখ্যানের বেদনা, রাগ, ঘৃণা সত্বেও, আত্মদহনের মধ্যেও, প্রিয়ার মঙ্গল কামনা করে l প্রেমের স্বার্থহীনতার এই প্রকাশ সুন্দরভাবে ফুটে উঠেছে কবি অনিমেষ দন্ডপাট - এর "মনোভঙ্গ" কবিতাটিতে l
কবিতাটির ভাব প্রকাশের ভঙ্গিটি সুন্দর l


কবিকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা l