103.
কবি সংহিতা "ছোট্ট্বেলার বন্ধু" কবিতায় মানুষ তার বিভিন্ন বয়সে বন্ধুত্বের যে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা লাভ করে তার চিত্রায়ন করবার প্রয়াস করেছেন l


শিশুকাল মানুষের জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় l হাসি আনন্দে শিশুকালটা বেশ কেটে যায় l শিশুরা সরল, নিষ্পাপ হয় l চারপাশের প্রকৃতি ও মানুষজনের সঙ্গে তার যে মেলামেশা, তার মধ্যে কোনো বিশেষ হিসেবনিকেশ থাকে না, থাকে শুধু তাৎক্ষণিক ভালো লাগার অনুভব l বন্ধু নির্বাচনে পরস্পরের সামাজিক অবস্থান, প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি ভাবনাও তাকে ভাবিত করে না l শিশুর সারল্যে পরিচিত, অপরিচিত যে কোনো সমবয়সীর সঙ্গে তাৎক্ষণিক তার বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে l খুব সামান্য কারণে খেলার ফাঁকে যখন তখন ঝগড়া বেঁধে যায় l সাময়িক গোঁসা হয় l আড়ি দেয়া নেয়া চলে l মনে হয় যেন সব সম্পর্ক শেষ হয়ে গেল l কিন্তু এই বিচ্ছেদের মেয়াদ স্বল্পস্থায়ী l আবার ভাব হয় l চক্র আকারে এই আড়ি ও ভাবের মধ্যে দিয়ে শৈশব দিনের বন্ধুত্ব এগিয়ে চলে l


কিন্তু বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বন্ধুত্বের রসায়নও পাল্টে যায় l উচ্ছাস এর পরিবর্তন হয় l শৈশবের সেই অবিরাম ঝগড়া থাকে না l এই ঝগড়া, এই ভাব, ক্ষণে ক্ষণে সম্পর্কের পট পরিবর্তন বড়োবেলায় হয় না l যা হয়, তার স্থায়িত্ব থাকে l আচরণে গাম্ভীর্য আসে l কথাবার্তা সীমা মেনে চলে l শৈশব কালের সেই বেহিসাবি বন্ধুত্ব অনেক পিছনে ছুটে যায় l যেন নতুন করে পরিচয় হয় l পুরনো দিনের সম্পর্কগুলো জুড়বার প্রচেষ্টা হয় l কিন্তু সেভাবে কার্যকর হয় না l


শৈশবে পরস্পর সম্বন্ধে কোনো ছুতমার্গ থাকে না l ফলে নিঃসঙ্কোচে, নির্দ্বিধায় শিশুরা পরস্পরের সঙ্গে খোলামনে মিশে যেতে পারে l কিন্তু বয়সকালে নিজের একটা পরিচয় হয় l সেই পরিচয়ের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে আচরণের মধ্যে পরিবর্তন আনতে হয় বা এসে যায় l এই পরিচয়ের কিছু সীমাবদ্ধতা থাকে l তাকে মেনে চলতে হয় l ইচ্ছে থাকলেও অনেক কিছু করা যায় না l ইচ্ছে থাকলেও অনেকের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক স্থাপন করা যায় না l অনেকটা চাপে পড়েই কখনও শৈশবের বন্ধুত্বে ইতি টানতে হয় l শৈশবের বন্ধু যদি বর্তমানের স্ট্যটাস এর সঙ্গে না মেলে, আত্মসম্মানবোধ, আত্মমর্যাদা বন্ধুত্বের পথে বাধা হয়, তাহলে সেই সম্পর্ককে টেনে নিয়ে যেতে মন সায় দেয় না l


একটি ছোট ছেলে l একটি ছোট মেয়ে l শৈশবের নিয়ম মেনে তাদের শৈশবকালের বন্ধুত্ব l সেই ছেলেটি, সেই মেয়েটি যখন অনেকটা বড়ো হয়ে যায়, তখন তারা অনেকটাই পাল্টে যায় l ছোটবেলার সেই স্মৃতিগুলো আবছা হয়ে যায় l বন্ধুত্বটা বহু পিছনে ছাড়া পড়ে যায় l অনেকদিন পর যখন কিছুক্ষণের জন্য সাক্ষাত হয়, যেন আবার নতুন করে পরিচয় শুরু হয় l পুরনো স্মৃতিগুলো টুকরো টুকরো করে মনে পড়ে l সেগুলিকে জুড়বার প্রয়াস চলে l কিন্তু সে প্রয়াস খুব কার্যকর হয় না l সেদিনের সেই বন্ধুত্ব যেন অনেক দূরে সরে গেছে l আগের মতো কথায় কথায় ঝগড়াও নেই, সেই ভাবও নেই l বন্ধুটিই যেন বদলে গেছে l হাসি আছে কিছুটা সেই আগের মতো l কিন্তু মাঝে আছে অনেক প্রশ্ন, অনেক সংশয় l একের ভাবনার সঙ্গে অপরের ভাবনা মেলে কি না, পরস্পরকে তারা সেইভাবে খোঁজে কি না, খুঁজে না পেলে হারানোর ব্যথা অনুভব করে কি না - এরকম নানা প্রশ্ন ও সংশয় ছোটোবেলার বন্ধুকে স্বীকার করে তার সঙ্গে সম্পর্ক পুনঃস্থাপনের পথে বাধা হয় l


শৈশবকালের অনুভূতি শিশুকালেই মানায় l বড়ো হয়ে গেলে সত্যি সত্যি বড়ো হতে হয় l নিজের মধ্যে আর শিশুমনটাকে প্রশ্রয় দেয়া চলে না l তাই বন্ধুত্বের নতুন সমীকরণ তৈরি হয় l


বন্ধুত্বকে বিষয় করে মানবমনের নানা গলি ঘুলি বিচরণের মধ্যে দিয়ে মনস্তাত্বিক স্বাদে পূর্ণ  "ছোট্ট্বেলার বন্ধু" কবিতাটির জন্য কবি সংহিতাকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন l