এক হল বিপত্তি, আর অন্যটা বিপর্যয় l


বিপত্তি কখন ?
যখন অসুবিধা ক্ষণস্থায়ী l
সেটা দীর্ঘজীবি হয়ে যখন আঘাত করল অর্থনীতিকে
বহু মানুষ মারা গেল, আহত হল, সঙ্গে গবাদি পশু
ফসল নষ্ট হল, ঘরবাড়ি চুরমার, মানুষ হল কর্মহীন
পরিকাঠামো গেল ভেঙ্গে, রাষ্ট্রের ওপর এল চাপ,
মানুষকে বিপদমুক্ত করার, তার পুনর্বাসন, রুজি l
পরিকাঠামো পুন-নির্মাণ, সেটা হল বিপর্যয় l


বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা অর্থ শুধু ত্রাণ বিলি নয়,
বিপর্যয়ের সামগ্রিক ব্যবস্থাপনা l
প্রস্তুতি, বিপর্যয়কালীন ত্রাণ ও উদ্ধার
এবং বিপর্যয়-উত্তর পূনর্বাসন l


বিপর্যয়কে আমরা রুখব কি ভাবে ?
না, সব বিপর্যয়কে রুখতে তো পারব না l
তার থেকে ক্ষতির পরিমাণকে কমানো যেতে পারে l
মানুষকে উদ্ধার করে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাওয়া
বিপর্যয় পরবর্তীতে তার পাশে দাঁড়ানো l


বন্যাকে আমরা রুখে দিতে পারি বাঁধ দিয়ে
ঝড়কে শান্ত করব গাছের সারি দিয়ে l
তার জন্য উপকূল অঞ্চলে প্রচুর গাছ চাই l
আর থাকবে ওয়ার্নিং ব্যবস্থা - সতর্কতা জারি l
এত প্রযুক্তি - কিছু বিপর্যয়ের পূর্বাভাস থাকে,
সেটা প্রচারিত হবে l মানুষ সাবধান থাকবে l
প্রস্তুতি বলতে - থাকবে সার্চ অ্যান্ড রেস্কু দল
স্নিফর ডগ স্কোয়াড, বিশেষ পরিবহন ব্যবস্থা
প্রশিক্ষিত মেডিক্যাল টিম, সচেতনতা শিবির l
আর যেটা অবশ্যই দরকার - একটা ভারপ্রাপ্ত দপ্তর l


বিপর্যয়কে আমরা ওয়াক ওভার দিতে পারি না l
প্রকৃতি মা - যার কাছে আমাদের অস্তিত্ব ঋণী
মাঝে মাঝে গোঁসা করেন l বেশ ধরেন -
বন্যা, ভূমিকম্প, ঝড়, খরা, বজ্রপাত - আরও কত !
প্রস্তুতি নিয়ে আমরা তার মোকাবিলা করব l


আছে আমাদের নিজেদের ভুলে সংঘটিত বিপর্যয়
আগুন, দুর্ঘটনা, শিল্পাঞ্চলে বিষক্রিয়া, দূষণ
সন্ত্রাস, বিস্ফোরণ, যুদ্ধ l
কিছু আচরণ যা প্রতি মুহূর্তে
আমাদের বৃহত্তর বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে l
প্লাস্টিক, জল অপচয়, অরণ্য ধ্বংস - আরও কত !


একদিকে বিপর্যয়ের সঙ্গে লড়াই করছি
অন্যদিকে লোভ হিংসা বোকামি আমাদের
সেই বিপর্যয়ের দিকেই নিয়ে যাচ্ছে l
আমাদের লড়তে হবে আমাদের ভেতরের
বিপর্যয় সৃষ্টিকারী অভ্যাস ও কর্মের সঙ্গেও l