বাসন্তী বেলায় কৃষ্ণচূড়ার মায়া
নীরব হৃদয়ে দিয়েছে হানা
তাই তো আজ তেপান্তরে ডানা মেলা
শহুরে অভ্যাস্ত পায়ের মেঠো পথে ছুটে চলা।
গাঁয়ের পথের ধুলায় মিশে দিশেহারা
কোকিলের গান, বেলিফুলের ঘ্রাণ
বাউণ্ডুলে মনের অলি-গলি জুড়ায় প্রান।
শিমূলের ফুল, আমের মুকুল কত যে করে ব্যাকুল
পাগল পাড়া মন ছুটছে আজ ছুঁয়ে বাসন্তী ভুল।
ইট-পাথরের জঙ্গলে নির্বোধ পথিক
ছুটছে ফাল্গুনের ক্ষণে দূরান্ত বাসন্তী টানে
কঞ্জবনে পাখির কলতানে
কি মায়ায় জড়িয়েছে অন্তর নাহি জানে
বাসন্তী হাওয়া দোলা দেয় ব্যাকুল প্রানে।
কচি পল্লবে আলোর নাচন, চান্দের কিরণ
মনোহর বাংলার এ কি আবরণ?
চিত্ত আজ না পেতে চায় ফিরে
ছন্নছাড়া তামাশা করা
পায়রার খোপে বন্দী বস্তাপচা শহুরে জীবন
বাংলায় হারাতে আজ কেউ করিস না বারণ।